Connect with us

Cricket News

WTC Final 2021: যে ৫টি কারণে চ্যাম্পিয়নশিপ ট্রফি খোয়াল ভারত, দেখুন এক নজরে

  • by

Advertisement

বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ ফাইনালে ৮ উইকেটে ভারতকে হারিয়ে জয়ের শিরোপা পেল নিউজিল্যান্ড। এই নিয়ে দ্বিতীয় কোনও আইসিসি ইভেন্টে চ্যাম্পিয়ন হল নিউজিল্যান্ড, দুবারই ভারতকে হারিয়ে। ব্যাটিংইয়ে চরম ভরাডুবির পর বোলিংয়েও দক্ষতা দেখাতে চরম ব্যর্থ হয় টিম ইন্ডিয়া। ১৭০ রানে সমাপ্ত হয় টিম ইন্ডিয়ার দ্বিতীয় ইনিংস। নিউজিল্যান্ডের সামনে ছিল ১৩৯ রানে লক্ষ্য। ক্রিজে নেমে মাত্র ২ উইকেট হারিয়ে বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ ফাইনালের শিরোপা জিতে নেয় কিউয়িরা। একনজরে দেখে নেওয়া যাক, টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে ভারতের পরাজয়ের কারন-

১.টসে হার:

টসে হার কোথাও একটা প্রভাব ফেলে। ওরকম স্যাঁতস্যাঁতে পিচে যে কোনো অধিনায়ক আগে বোলিং করতে চাইবে। কেন উইলিয়ামসনও বোলিং বেছে নেন। কঠিন পরিস্থিতিতে প্রথমে ব্যাট করতে হয় ভারতকে। কোহলি ম্যাচের শুরুতেই জানিয়েছিলেন যে, তিনিও টস জিতলে প্রথমে বোলিং নিতেন

২. টিম কম্বিনেশন:

কিছু ভক্তের মতে, ভারতের দুই স্পিনার বাছাইয়ের সিদ্ধান্তের জন্য এই খেলায় তাদের মূল্য দিতে হয়েছিল, কিন্তু উভয় স্পিনারই বোলিং ইউনিটে ভাল পারফর্ম করেছিল। সম্ভবত, এগুলি সঠিকভাবে ব্যবহার করা হয়নি। রবীন্দ্র জাদেজা দুই ইনিংসে মাত্র ১৫.২ ওভার বোলিং করেছিলেন। তিনি ৪৫ রান দেন এবং একটি উইকেট নেন। এমনকি অশ্বিনও দুই ইনিংস জুড়ে মাত্র ২৫ ওভার বোলিং করতে পেরেছিলেন, যেখানে তিনি চার উইকেট পেয়েছিলেন। এটা বলা ভুল হবে যে স্পিন বোলাররা ভাল পারফর্ম করতে পারেনি, তবে ইংলিশ পরিস্থিতি লক্ষ্য করে এবং আরও একটি পেস-বোলিং বিকল্প অন্তর্ভুক্ত করে ভারত ম্যাচে সুবিধা পেতে পারত।অন্ততপক্ষে হনুমা বিহারীর মতো একজন একজন বিশেষজ্ঞ ব্যাটসম্যান খেলালে কঠিন পিচে ব্যাটিং লাইনআপ আরও মজবুত হতো।

৩. কিউয়িদের লোয়ার-অর্ডার ব্যাটসম্যানেদের উইকেট নিতে চরম ব্যর্থতা

অনেক ভক্ত মনে করেন, চতুর্থ ইনিংসে ব্ল্যাকক্যাপসের হয়ে প্রায় ১৭৫-২০০ রানের লক্ষ্য মাত্রা নির্ধারণ করলে ভারত নিউজিল্যান্ডকে চাপে ফেলতে পারত। কিন্তু, তা হয়নি। কেউ কেউ তাদের ব্যর্থতার জন্য দ্বিতীয় ইনিংসে ভারতের ব্যাটিং পারফরম্যান্সকে দায়ী করলেও, সম্ভবত প্রথম ইনিংসে বোলিংই দলকে হতাশ করেছিল। মোহাম্মদ সামি ও ইশান্ত শর্মা প্রথম ইনিংসে কিউয়িদের ১৬২/৬ এ গুটিয়ে দেন। সেই পর্যায়ে, দেখে মনে হচ্ছিল ভারত এমনকি একটি লিড নিতে পারে। তবে নিউজিল্যান্ডের শেষ চার উইকেট মোট ৮৭ রান যোগ করে। ব্ল্যাকক্যাপস প্রথম ইনিংসে ৩২ রানের লিড নেয় এবং খেলার দ্বিতীয়ার্ধে এটি একটি বিশাল পার্থক্য তৈরি করে।

৪.ভুল শট নির্বাচন

দল নির্বাচনের চেয়েও, শেষ দিনে ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের কাছ থেকে কিছু খারাপ শট নিউজিল্যান্ডের জয়ের সম্ভাবনাকে প্রভাবিত করেছিল। ঋষভ পন্থকে বড় স্কোরের জন্য প্রস্তুত দেখাচ্ছিল, কিন্তু তারপরে তিনি ট্রেন্ট বোল্টের বলে হেনরি নিকোলসের হাতে একটি ক্যাচ দেন। এমনকি সহ-অধিনায়ক অজিঙ্ক রাহানেও লেগ সাইডে একটি ডেলিভারিতে তার উইকেট হারান। শট নির্বাচন যদি একটু ভাল হত, তাহলে ভারতীয় দল আরও একটু ব্যাট করে নিউজিল্যান্ডের জন্য আরও বড় লক্ষ্য স্থির করতে পারত। এছাড়া বড় পার্টনারশিপ গড়তে না পারা ভারতের বড় ইনিংস গড়ার পথে প্রতিবন্ধকতা হয়ে দাঁড়ায়।

৫.বুমরাহর ব্যর্থতা:

জসপ্রীত বুমরাহ নিঃসন্দেহে এই মুহূর্তে বিশ্বের অন্যতম সেরা অল-ফরম্যাট বোলার। তবে, ডানহাতি পেসার বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ ফাইনালে পারফর্ম করতে পারেননি। তিনিই একমাত্র ভারতীয় বোলার যিনি ডব্লিউটিসি ফাইনালে উইকেটহীন হয়ে ফিরেছিলেন। বুমরাহ প্রথম ইনিংসে ২৬ ওভার বোলিং করে ৫৭ রান দেন। দ্বিতীয় ইনিংসে তিনি ১০.৪ ওভার বোলিং করেন এবং ৩৫ রান দেন। দ্বিতীয় ইনিংসের সময় বুমরার বলে রস টেলরের ব্যাটের কিনারায় লেগে ক্যাচ উঠলেও, দুর্ভাগ্যবশত চেতেশ্বর পূজারা ক্যাচ ফেলে দেন। বুমরাহও খেলায় দুইবার ব্যাট করার সুযোগ পান, এবং উভয় বারই তিনি খাতা খোলার আগে আউট হন। দ্বিতীয় ইনিংসে কেন উইলিয়ামসনের একটি ক্যাচও তিনি ফেলে দেন। যেহেতু তিনি এই খেলায় ভারতের অন্যতম প্রধান পেসার ছিলেন, তাই তার হতাশাজনক পারফরম্যান্স দলের পরাজয়ের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিল।

৬. বারবার খেলা বন্ধঃ

সর্বোপরি, বারবার বৃষ্টি ও খারাপ আলোর জন্য খেলা বন্ধ হতে থাকে। ব্যাটসম্যানদের বারবার মাঠ ছাড়তে হয় এবং ফিরে এসে আবার ব্যাট করতে হয়। এতে পিচে সেট হওয়া কঠিন হয়ে পরে। প্রথম ইনিংসে এমনই কঠিন পরিস্থিতির মুখোমুখি হয় ভারত।

.

Advertisement

#Trending

More in Cricket News